| |

চলবে বিলাসবহুল বাস, কমবে ঢাকা-খুলনা ভাড়া

প্রকাশঃ জুন ২৪, ২০২২ | ৫:১৩ অপরাহ্ণ

ভালুকা প্রতিদিন ডেস্ক: দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলাকে রাজধানী ঢাকার সঙ্গে যুক্ত করেছে পদ্মা সেতু। তৈরি হয়েছে সেতুবন্ধ। এ কারণে খুলনা থেকে মাওয়া পাড়ি দিয়ে ঢাকায় যেতে গণপরিবহনের সংখ্যা এতদিন সীমিত থাকলেও এখন তা বাড়ানো হচ্ছে। পদ্মা সেতু পার হয়ে এখন খুলনা-মাওয়া-ঢাকা রুটে যুক্ত হচ্ছে ভিন্ন ভিন্ন নামে বিলাসবহুল বাস।

ইতিমধ্যে ‘ইলিশ’ ও ‘প্রচেষ্টা’সহ বেশকিছু নতুন পরিবহনের নাম  শোনা গেছে। সেতু উদ্বোধনের পর থেকে চলাচল শুরু করবে এসব পরিবহন। পরিবহনগুলো খুলনা-ঢাকার ভাড়া এখনো চূড়ান্ত করতে পারেনি। তবে গ্রীনলাইন খুলনা থেকে ঢাকা যাওয়ার ভাড়া ঘোষণা করেছে। পদ্মা সেতু উদ্বোধনের পরদিন আগামী ২৬শে জুন থেকে ওই পরিবহন এ ভাড়া কার্যকর করবে। সূত্রমতে, পদ্মা সেতুর পিলারে আঘাতের পর থেকে নদীতে ফেরি চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

এরপর থেকে হানিফ, ঈগল ও সোহাগ পরিবহনের গাড়ি মাওয়া দিয়ে যাতায়াত বন্ধ করে দেয়। গ্রীনলাইন, টুঙ্গিপাড়া এক্সপ্রেস, বনফুল ও ইমাদসহ কয়েকটি পরিবহন লঞ্চ পারাপারে যাত্রী বহন করে। এ রুটে নন এসি থেকে এসি বাসে ৬০০ থেকে ১০০০ টাকা পর্যন্ত ভাড়া নেয়া হয়। 

পদ্মা সেতু চালু হলে ভাড়া কিছুটা কমতে পারে বলে পরিবহন কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। গ্রীন লাইন পরিবহন খুলনার ম্যানেজার মো. আইয়ুব হোসেন বলেন, বর্তমানে ইকোনোমি শ্রেণির ৪টি গাড়ি এ রুটে চলাচল করে। ভাড়া প্রতি যাত্রীর কাছ থেকে ১০০০ টাকা নেয়া হয়। পদ্মা সেতু চালু হলে ভাড়া কমে যাবে। কারণ হিসেবে তিনি উল্লেখ করে বলেন, লঞ্চভাড়া বাবদ তাদের ৪ হাজার টাকা গুনতে হয়।

পদ্মা সেতু চালু হলে সেই টাকা আর তাদের খরচ হবে না। সরকার গাড়ির টোল নির্ধারণ করেছে ২০০০ থেকে ২২০০ টাকা। সেক্ষেত্রে তারা ইকোনোমি শ্রেণিতে ভাড়া ৭৫০ টাকা নির্ধারণ করেছে।  তিনি বলেন, সেতু চালু হলে ডাবল ডেকার ও বিজনেস ক্লাসের মতো গাড়ি খুলনায় চলাচল করবে।

সেক্ষেত্রে প্রতিটি সিটের ভাড়া ১২০০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এ গাড়িগুলো আগামী ২৩শে জুনের মধ্যে খুলনা নগরীতে প্রবেশ করবে। সোহাগ পরিবহনের ইনচার্জ মো. ইয়ামিন বলেন, লঞ্চ পারাপারে তাদের কোনো গাড়ি নেই। খুলনা থেকে গোপালগঞ্জ, ভাঙা দিয়ে আরিচা পার হয়ে তাদের গাড়ি ঢাকায় যায়। পদ্মা সেতু চালু হলে তারাও সেতুর রুট ব্যবহার করবে। ভাড়ার বিষয়ে এখনো কোম্পানি সিদ্ধান্ত জানায়নি। 

তবে সেতু চালু হলে তারা যাত্রীদের মতামত নিয়ে এক সপ্তাহ এ রুটে গাড়ি চালাবেন। যাত্রীরা যদি এ পথ ব্যবহার করতে চান, তাহলে তারা সেতু ব্যবহার করবেন। পরবর্তীতে ভাড়া নির্ধারণ করা হবে। এ পরিবহন কোম্পানিও আধুনিক ও উন্নতমানের গাড়ি সংযোজন করবে বলে তিনি জানিয়েছেন। হানিফ পরিবহনের ম্যানেজার মো. শাওন বলেন, ভাড়ার বিষয়ে কর্তৃপক্ষ এখনো সিদ্ধান্ত দেয়নি। তবে আরিচা রোডের থেকে এ রুটের ভাড়া কম হবে বলে তিনি জানিয়েছেন।

টুঙ্গিপাড়া এক্সপ্রেসের জি এম গোলাম ছামদানি বলেন, ইতিমধ্যে তাদের ১০টি আধুনিক গাড়ি খুলনায় চলে এসেছে। সবকিছু ঠিক থাকলে এ গাড়িগুলো আগামী ২৬শে জুন সকালে যাত্রী নিয়ে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা হবে। ভাড়ার বিষয়ে কোম্পানি কিছু জানায়নি।

তিনি আরও বলেন, বর্তমানে তাদের পরিবহনে খুলনা-ঢাকা নন এসি ৬০০ টাকা, এসি ৭০০ টাকা ও বিজনেস শ্রেণিতে ৯০০ টাকা ভাড়া নেয়া হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ব্রেকিংঃ

শায়খ আহমাদুল্লাহর বাবা আর নেই বরগুনা এমপি শম্ভুর সঙ্গে তর্কাতর্কি অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মহররম প্রত্যাহার ভালুকা উপজেলায় দারিদ্র ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত ভালুকায় সাংবাদিকদের সাথে মত বিনিময় করেছেন আলহাজ্ব কাজিম উদ্দিন আহম্মেদ ধনু এমপি জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি সিরাজগঞ্জে ভোগান্তি-বিক্ষোভ বীর মু‌ক্তি‌যোদ্ধা লাল মিয়ার জানাযা সম্পন্ন কুমিল্লার যমজ শিশু পদ্মা ও সেতুর নাম প‌রিবর্তন করেছে পরিবার পদ্মা সেতু হওয়ার কার‌নে ভিড় বাড়‌ছে কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের নেফ্রোলজি (কিডনী) বিভাগের অধ্যাপক হলেন ডা. কেবিএম হাদিউজ্জামান সেলিম ভালুকা উপজেলা ধীতপুর ইউনিয়ন আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠিত